সাস্থ্য সুরক্ষায় বেল এবং বেলের শরবতের বিশেষ উপকারিতা

সাস্থ্য সুরক্ষায়বেল বেল এবং বেলের শরবতের বিশেষ উপকারিতা
এই গরমে বেশি পরিমানে পানি পান করা প্রয়োজন, বিশেষ করে বিভিন্ন প্রকার ফলের ঠাণ্ডা শরবত । বেল একটি পুষ্টিকর আর উপকারী ফল। কাচা পাকা দুটোই সমান উপকারী। কাচা বেল ডায়রিয়া ও আমাশায় রোগে ধন্বন্তরী। পাকা বেলের শরবত সুস্বাদু। বেলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, এ এবং ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও পটাসিয়ামের মত মূল্যবান পুষ্টি উপাদান।


ফলের খাদ্যগুণ :
১০০ গ্রাম বেলের শাঁসে থাকে - পানি 54.96-61.5 গ্রাম, প্রোটিন 1.8-2.62 গ্রাম ; স্নেহপদার্থ 0.2-0.39 গ্রাম ; শর্করা 28.11-31.8 গ্রাম ; ক্যারোটিন 55 মিলিগ্রাম ; থায়ামিন 0.13 মিলিগ্রাম ; রিবোফ্ল্যাবিন ১.১৯ মিলিগ্রাম ;নিয়াসিন ১.১ মিলিগ্রাম ; এসকর্বিক এসিড ৮ - ৬০ মিলিগ্রাম ; এবং টারটারিক এসিড ২.১১ মিলিগ্রাম।


ফলের ভেষজগুণ :
বেল কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে ও আমাশয়ে উপকার করে। আধাপাকা সিদ্ধ ফল আমাশয়ে অধিক কার্যকরী। বেলের শরবত হজমশক্তি বাড়ায় এবং তা বলবর্ধক। বেলের পাতার রস মধুর সাথে মিশিয়ে পান করলে চোখের ছানি ও জ্বালা উপশম হয়। পাতার রস, মধু ও গোল মরিচের গুঁড়া মিশিয়ে পান করলে জন্ডিস রোগ নিরাময় হয়। পেট খারাপ, আমাশয়, শিশুর স্মরণ শক্তি বারানোর জন্য বেল উপকারী। বেলে প্রচুর ভিটামিন সি আছে। এই ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। বেল নিয়মিত খেলে কোলন ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা অনেকাংশে কমে যায়।


সতর্কতা :
অতিরিক্ত কোন কিছুই ভাল নয়। বেলের শরবত / বেল পরিমাণ মত খেতে হবে। অতিরিক্ত বেল খেলে বদহজম হয়।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url